যুদ্ধাপরাধী বিচার ॥ আলবদরকে আজরাইলের দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন মুজাহিদ: যুক্তিতর্কে ড. তুহিন আফরোজ

New York Bangla
By New York Bangla মে ১৬, ২০১৩ ২০:৩৬

ঢাকা:- মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে বাদীপক্ষের অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের বিরুদ্ধে যুক্তিতর্ক শেষ হয়েছে। ২২ মে থেকে আসামি পক্ষের যুক্তিতর্ক শুরু হবে। চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান শাহীনের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ বৃহস্পতিবার এই আদেশ প্রদান করেছে। প্রসিকিউটর ড. তুরিন আফরোজ আইনী পয়েন্টে যুক্তিতর্কে বৃহস্পতিবার লিগ্যাল ইস্যু তুলে ধরেন। যুক্তিতর্কে তিনি বলেন, ‘মুজাহিদ মুক্তিযুদ্ধে খলনায়কোচিত বীরত্ব ও নেতৃত্বের পথিকৃৎ’ ছিলেন। মুজাহিদ মুক্তিযুদ্ধের সময় আলবদর বাহিনীকে আজরাইলের দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন এবং মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের প্রাক্কালে তাঁর নির্দেশে বাংলার বীর সন্তান বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়।

ICT_notice

প্রসিকিউটর ড. তুরিন আফরোজ যুক্তিতর্কে বলেন, মুজাহিদ ছিলেন আলবদরদের নেতৃত্বের জায়গায়। তিনি এই বাহিনীকে আজরাইল বাহিনীর সঙ্গে তুলনা করেছেন। আমরা জানি, আজরাইল মানুষের জান কবজ করেন। তাঁর এই তুলনা আল্লাহর সঙ্গে শিরক করার সমান। ইসলামের নামে তাঁরা যা করেছেন, তাতে আল্লাহর আরশ পর্যন্ত কেঁপে উঠেছে। এ সময় তিনি অসংখ্য বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করার জন্য ইতিহাসের খলনায়ক মুজাহিদের সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসি দাবি করেন।

বাদীপক্ষ বৃহস্পতিবার চতুর্থ এবং শেষ দিনের মতো যুক্তি উপস্থাপন করে। বৃহস্পতিবার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন তুরিন আফরোজ। এর আগে আরও ৩ কার্যদিবস যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন প্রসিকিউটর মোখলেসুর রহমান বাদল। যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে আগামী ২২ মে থেকে আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরুর আদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল। জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করতে গিয়ে তুরিন আফরোজ বলেন, ‘মুজাহিদ আলবদর বাহিনীকে আজরাইলের দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন। তাঁর নির্দেশেই বাংলাদেশের বীর সন্তান বুদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে বদর বাহিনীর সদস্যরা।’ তিনি বলেন, মুজাহিদ মুক্তিযুদ্ধে খলনায়কোচিত বীরত্ব ও নেতৃত্বের পথিকৃৎ।

প্রসিকিউটর বলেন, ১৯৭১ সালের এপ্রিল মাসে সংগ্রাম পত্রিকায় প্রকাশিত মুজাহিদের দেয়া একটি বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে ২০১০ সালের ৩১ অক্টোবর ভোরের কাগজ একটি প্রতিবেদন তৈরি করে। সেই প্রতিবেদনে বলা হয়, ময়মনসিংহের একটি সভায় মুজাহিদ বলেছিলেন, যেখানে মুক্তিবাহিনী, সেখানেই আলবদর। আর যেখানেই মুক্তিবাহিনী সেখানেই আজরাইলের কাজ করবে আলবদর। তিনি বলেন, মুজাহিদের এই বক্তব্যের মাধ্যমেই তাঁর গণহত্যায় নেতৃত্ব দেয়ার বিষয়টি সুস্পষ্ট হয়েছে।

আলবদরের কর্মকা- সম্পর্কে বর্ণনা করতে গিয়ে তুরিন আফরোজ ’৭১-এর ঘাতক দালালরা কে কোথায় বই থেকে ১৬ ডিসেম্বর বধ্যভূমিতে পড়ে থাকা বুদ্ধিজীবীদের মরদেহের ভয়ঙ্কর বর্ণনা পড়ে শোনান। প্রসিকিউটর বলেন, মুজাহিদ ইশারা করলেই অধীনস্তরা তাঁর কথা শুনত। এটা ছিল তাঁর নায়কোচিত নেতৃত্বের ধরন। পাকিস্তানের এক জামায়াত নেতার লেখা ‘আলবদর’ বইতে মুক্তিযুদ্ধের শেষ দিনে বাংলাদেশের বিজয়ের মুহূর্তেও আলবদর বাহিনীর তৎপর থাকার বর্ণনা রয়েছে।

বই থেকে অংশবিশেষ পড়ে তুরিন আফরোজ বলেন, সারাদেশের আলবদর বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে ছিলেন মুজাহিদ। শেষ দিন পর্যন্ত আলবদর বাহিনীর সদস্যরা মুজাহিদের হুকুম তামিল করেছে। তিনি বলেন, অধীনস্তদের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের ভিত্তি কেবল ফর্মাল নয়, ইনফর্মালও ছিল। তুরিন আফরোজ বলেন, দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা সাক্ষীরা মুজাহিদকে একেক সময় একেকভাবে দেখেছেন। সাক্ষীদের কেউ তরবারি হাতে, কেউ বন্দুক হাতে, কেউ আবার ইশারায় হত্যার আদেশ দিতেও দেখেছেন। সাক্ষীদের এসব বর্ণনায় ইতিহাসের খলনায়ক মুজাহিদের চরিত্র ফুটে উঠেছে। মুজাহিদের বিরুদ্ধে তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক খান এবং লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির, সাংবাদিক মাহবুব কামাল, শাহীন রেজা নূরসহ প্রসিকিউশনের ১৭ সাক্ষী সাক্ষ্য দিয়েছেন। অপরদিকে মুজাহিদের পক্ষে একমাত্র সাক্ষী হিসেবে তাঁর ছোট ছেলে আলী আহমাদ মাবরুর সাক্ষ্য দিয়েছেন।

মোবারক ॥ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মোবারক হোসেনের বিরুদ্ধে ২০ মে থেকে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হবে। ওই দিন মোবারকের বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের সাক্ষী দারুল ইসলামের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হতে পারে। চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ বৃহস্পতিবার এই আদেশ প্রদান করছেন।

মীর কাশেম আলী ॥ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগের মামলায় গ্রেফতারকৃত জামায়াতের নির্বাহী কমিটির সদস্য মীর কাশেম আলীর বিরুদ্ধে ১৪টি অভিযোগ এনে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করেছে প্রসিকিউশন। বৃহস্পতিবার প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুমসহ প্রসিকিউশন টিম আনুষ্ঠানিক অভিযোগ ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার বরাবর দাখিল করে।

এরপর ট্রাইব্যুনাল মীর কাশেম আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেয়া হবে কিনা সে বিষয়ে আদেশের জন্য আগামী ২৬ মে ধার্য করেছে ট্রাইব্যুনাল। ৯ মে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল মীর কাশেম আলীর বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিলের জন্য ১৬ মে দিন ধার্য করে। মীর কাশেম আলীর বিরুদ্ধে আনীত ১৪টি অভিযোগের মধ্যে ১১ ও ১২ নম্বর অভিযোগ ছাড়া বাকি সব অভিযোগই আটক করে নির্যাতনের বর্ণনা রয়েছে।

১১ নম্বর অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তর সালের ২৮ নবেম্বর শহীদ জসিমসহ ছয়জনকে ধরে নিয়ে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। ১২ নম্বর অভিযোগে বলা হয়, জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরীসহ তিনজনকে অপহরণ করে নির্যাতন করা হয়। এরপর সেখান থেকে দুইজনকে হত্যা করে লাশ গুম করে ফেলা হয়। এ ছাড়া বাকি সব অভিযোগই আটক করে নির্যাতনের বর্ণনা রয়েছে।

একাত্তর সালের নবেম্বর মাসের শেষ দিকে ওমর-উল ইসলাম চৌধুরী, লুৎফর রহমান ফারুক, জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, সাইফুদ্দিন খান, আব্দুল জব্বার মেম্বার, হারুন অর-রশিদ খান, মোঃ সানাউল্লাহ চৌধুরী, নুরুল কুদ্দুস, সৈয়দ মোঃ এমরান, জাকারিয়া, সুনীল কান্তি বর্ধন ও নাসির উদ্দিন চৌধুরীকে অপহরণ করে নির্যাতন করা হয়। এর আগে গত ৬ মে মীর কাশেম আলীর বিরুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ, লুণ্ঠনসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের ১৪টি অভিযোগে তদন্ত চূড়ান্ত করে তদন্ত সংস্থা প্রসিকিউশনের জমা দেয়।

New York Bangla
By New York Bangla মে ১৬, ২০১৩ ২০:৩৬
Write a comment

No Comments

No Comments Yet!

Let me tell You a sad story ! There are no comments yet, but You can be first one to comment this article.

Write a comment
View comments

Write a comment

Your e-mail address will not be published.
Required fields are marked*

সর্বশেষ খবর

আজকের দিন-তারিখ

  • বুধবার ( দুপুর ১:০৩ )
  • ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ২৯ জিলহজ্জ, ১৪৩৮
  • ৫ আশ্বিন, ১৪২৪ ( শরৎকাল )

বাংলা ক্যালেন্ডার

IMG_11152014_10_DEBDUT!