বলের আঘাতে অস্ট্রেলীয়ান ক্রিকেটার ফিলিপ হিউজের মৃত্যুতে প্রবাসীরা শোকহত

MD Majumder
By MD Majumder নভেম্বর ২৭, ২০১৪ ১৮:১৮

তৈয়বুর রহমান টনি নিউ ইর্য়ক থেকেঃ-

মাথায় বাউন্স বলের আঘাত পাওয়া অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার ফিলিপ হিউজ মারা গেছেন। আজ বৃহস্পতিবার সিডনির সেন্ট ভিনসেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসকেরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।
ঘরোয়া ক্রিকেট খেলায় প্রতিপক্ষের বোলারের বাউন্সারে মারাত্মক আহত হয়ে গত ২ দিন কোমায় থাকার পর মারা যান তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ২৫ বছর।philip #Hughes_Tony

মঙ্গলবার সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে শেফিল্ড শিল্ডের ম্যাচ চলাকালীন নিউ সাউথ ওয়েলসের পেসার শন অ্যাবোটের বাউন্সার হিউজের মাথায় এসে লাগে। এ সময় মাঠেই অচৈতন্য হয়ে পড়েন হিউজ। আধা ঘণ্টার মধ্যে দুটি অ্যাম্বুলেন্স ও এয়ার অ্যাম্বুলেন্সের সহায়তায় তাকে সেন্ট ভিনসেন্টের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। জরুরি ভিত্তিতে অস্ত্রোপচার করা হয় তার মাথায়। বৃহস্পতিবার বিকালে এক বিবৃতিতে দলের ডাক্তার পিটার ব্রুকনার হিউজের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘দুঃখের সঙ্গেই আমাকে জানাতে হচ্ছে কিছুক্ষণ আগে ফিলিপ হিউজ মারা গেছেন।’ তিনি আরও জানান, মঙ্গলবার মাথায় চোট পাওয়ার পর আর জ্ঞান ফেরেনি হিউজের। তবে মৃত্যুর আগে চোটের কারণে যন্ত্রণায় কাতরাননি তিনি। তার শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগের সময় পরিবার ও ঘনিষ্ঠ বন্ধুরা পাশেই ছিলেন।

দলের সবাই হাসপাতালে হিউজের পাশে সময় অতিবাহিত করেন। এছাড়া রিকি পন্টিং, সাইমন ক্যাটিচ, ফিল জ্যাকস ও ব্রেটলিও হিউজকে দেখতে হাসপাতালে আসেন। অস্ট্রেলিয়া জাতীয় দলের সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটারদের অনেকেই দেশটির বিভিন্ন প্রদেশ থেকে শয্যাশায়ী হিউজকে দেখতে ছুটে আসেন। যাদের মধ্যে রয়েছেন অ্যারন ফিঞ্চ, ম্যাথু ওয়েড, পিটার সিডল, পিটার ফরেস্ট, জর্জ বেইলি, এড কোয়ান, জাস্টিন ল্যাঙ্গার এবং ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জেমস সাদারল্যান্ড ও হাইপারফরম্যান্স ম্যানেজার প্যাট হাওয়ার্ড। এছাড়া ছিলেন জাতীয় দলের কোচ ড্যারেন লেহম্যানও।

 

হাসপাতালে হিউজের পাশে বিনিদ্র রজনী অতিবাহিত করেন শেফিল্ড শিল্ডে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়া ও নিউ সাউথ ওয়েলসের ম্যাচে হিউজের খেলা দেখতে মাঠে উপস্থিত থাকা হিউজের মা ও বোনসহ পরিবারের সদস্যরা। যে ম্যাচে ব্যক্তিগত ৬৩ রানের মাথায় পেসারের বাউন্সারে মাথায় আঘাত পেয়ে ক্রিজে লুটিয়ে পড়েন হিউজ। আজ বৃহস্পতিবার বিকালে সেন্ট ভিনসেন্ট হাসপাতালে হিউজের মা-বাবা গ্রেগ ও ভার্জিনিয়া এবং ভাই-বোন জ্যাসন ও মেগানের পক্ষ থেকে দেয়া বিবৃতি পড়ে শোনান ক্লার্ক, ‘আমাদের অত্যন্ত প্রিয় ছেলে ও ভাই ফিলকে হারিয়ে আমরা সর্বস্বান্ত। ক’দিন ধরেই আমরা অত্যন্ত কঠিন সময় অতিবাহিত করছি। আমাদের পাশে দাঁড়ানো ও সহানাভূতি জানানোয় আত্মীয়স্বজন, বন্ধু, খেলোয়াড়, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এবং সাধারণ মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

ক্রীড়াক্ষেত্রে ট্র্যাজেডি শব্দটা প্রায়ই ব্যবহার করা হয়। কিন্তু এ বিরল দুর্ঘটনাটি এখন সত্যিকারের বাস্তব জীবনের ট্র্যাজেডি হয়ে থাকবে। হৃদয়ের গভীর থেকেই আমরা শোকের ব্যথায় কাতর এবং ফিলিপকে হারানোর ক্ষতিটাও অপূরণীয়। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ২৬ টেস্ট খেলেন হিউজ। ইনিংসগুলোর মধ্যে তিনটি শতকও রয়েছে তার। ক্লার্কের চোটের কারণে পরবর্তী সপ্তাহে ভারতের বিপক্ষে অনুষ্ঠেয় গাব্বা টেস্টে দলে ডাক পাওয়ার সম্ভাবনা ছিল হিউজের। ২০০৯ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ডারবানে অভিষেক হওয়া এ ক্রিকেটার ২০ বছর বয়সে এক টেস্টে দুইবার সেঞ্চুরি হাঁকানো সর্বকনিষ্ঠ ব্যাটসম্যানে পরিণত হন।

‘ক্রিকেট কমিউনিটির হিসেবে আমরা তার মৃত্যুতে শোকাহত। এমন চরম দুঃসময়ে আমরা হিউজের পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। একইসঙ্গে হিউজের পরিবার, খেলোয়াড় ও দলের স্টাফদের প্রাইভেসির প্রতি সম্মান জানাতে সবিনয় অনুরোধ রাখছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।’ চোট পেয়ে অচেতন হিউজকে সিডনির সেন্ট ভিনসেন্ট হাসপাতালে নেয়ার পর থেকে সেখানে দুই দিন ধরে ভিড় করেন খেলোয়াড়, কোচ ও পারিবারিক বন্ধুরা। তারা তাকে দেখার পাশাপাশি তার পরিবারকে সান্ত্বনা দেন। হিউজের অন্যতম ঘনিষ্ঠ বন্ধু অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত হাসপাতালেই ছিলেন। বৃহস্পতিবার ভোর ৬টায় তিনি বাসায় ফেরেন।

ফিলিপ হিউজ অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ২৬ টেস্ট ও ২৫ ওয়ানডে খেরেছেন। মৃত্যুতে এক বিবৃতে প্রবীণ আম্পায়ার ও ক্রিকেট কোচ সৈয়দ আলতাফ হোসেন, ইউসুফ রহমান বাবু,(নিউ ইয়র্ক) বাংলাদেশ ক্রিকেট আম্পায়ার্স অ্যান্ড স্কোরার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি কাজী মোহাম্মদ ইউশা মিশু, সাধারণ সম্পাদক সয়লাব হোসেন টুটুল আম্পায়ার্স মন্জুর মিল্লকি(কানাডা), ক্রিকেটার জি এম নওসের (হিউসটন) মনির আলী(লস এন্জেলস),  নেহাল হাসনেইন (কানাডা), নাজীম সিরাজী, কাজিম সিরাজী(লস এন্জেলস), ফুটবলার কোহিনূর রহমান(লস এন্জেলস), সাতারু মোশাররফ হোসেন(লস এন্জেলস), ডাঃ মানিক(আটলান্টা), তৈয়বুর রহমান টনি, বাতেন রশিদ, ডালিম, মাইমুন ভাই, চঞ্চল, খোকা, সানি, বাবর, বাবুল ভাই, সাব্বির(নিউ ইয়র্ক), প্রবাসী বিভিন্ন ব্যাক্তিবর্গ গভীর শোক প্রকাশ করে মরহুমের রুহের আত্মার মাগফীরাত কামনা করেন এবং শোক সন্তোপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

 

MD Majumder
By MD Majumder নভেম্বর ২৭, ২০১৪ ১৮:১৮
Write a comment

No Comments

No Comments Yet!

Let me tell You a sad story ! There are no comments yet, but You can be first one to comment this article.

Write a comment
View comments

Write a comment

Your e-mail address will not be published.
Required fields are marked*

সর্বশেষ খবর

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার ( বিকাল ৫:৪৫ )
  • ২১ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯
  • ৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ ( হেমন্তকাল )

বাংলা ক্যালেন্ডার

IMG_11152014_10_DEBDUT!